| ঢাকা, বাংলাদেশ | রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১ |
1630810878.jpg 1629130011.gif

বিভাগ : অর্থ-বাণিজ্য তারিখ : ১২-১০-২০২১

দেশে কোটিপতির সংখ্যা লাখ ছুঁই ছুঁই: বাংলাদেশ ব্যাংক


  ভয়েস এশিয়ান ডেস্ক


ভয়েস এশিয়ান, ১২ অক্টোবর, ২০২১।। মহামারি করোনা ভাইরাসে দেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়লেও বেড়েছে কোটিপতির সংখ্যা। চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক জুন শেষে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবধারীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৯ হাজার ৯১৮ জনে, যা গত বছরের একই সময়ে (জুন শেষে) ছিল ৮৬ হাজার ৩৭ জন। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে কোটিপতি গ্রাহক বেড়েছে ১৩ হাজার ৮৮১ জন। শতকরা হিসাবে কোটিপতি বেড়েছে ১৬ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যমতে, ২০২১ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-মে-জুন) ব্যাংকখাতে পাঁচ হাজার ৬৪৬টি কোটিপতি ব্যাংক হিসাব যোগ হয়েছে, যেখানে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি-মার্চ) কোটিপতি হিসাবধারী বেড়েছিল ৩৮২ জন।

এছাড়া চলতি বছর জানুয়ারি পর্যন্ত ব্যাংকে কোটিপতি হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ৯৩ হাজার ৮৯০ জন। মার্চ শেষে কোটিপতি হিসাবধারী বেড়ে ৯৪ হাজার ২৭২ জনে দাঁড়ায়। জুন শেষে সেই সংখ্যা বেড়ে ৯৯ হাজার ৯১৮ জনে দাঁড়িয়েছে।

তথ্য বলছে, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের পরও ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দেশের ব্যাংকখাতে ১০ হাজার ৫১ জন নতুন কোটিপতি হিসাবধারী যোগ হন। এসব হিসাবে আমানত যোগ হয়েছে ৬৮ হাজার কোটি টাকা।

কোটিপতি হিসাব সংখ্যা বাড়তে থাকায় মোট আমানতে তাদের অবদানও বাড়ছে। চলতি বছরের জুন শেষে মোট আমানতে কোটিপতিদের অবদান ছিল ৪৪ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। জুন শেষে ব্যাংকগুলোতে সব ধরনের হিসাবে জমার পরিমাণ ১৪ লাখ ৩৯ হাজার ৭৬৩ কোটি টাকা। ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত ব্যাংকগুলোতে ১২ কোটি ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ব্যাংক হিসাব খোলা হয়। এর মধ্যে শূন্য দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ হিসাব রয়েছে কোটিপতিদের।

২০২১ সালের জুন শেষে ব্যাংকগুলোতে ১-৫ কোটি টাকা পর্যন্ত জমা থাকা হিসাব ছিল ৭৮ হাজার ৬৯৪টি, ৫-১০ কোটি টাকা পর্যন্ত আমানত থাকা ব্যাংক হিসাব সংখ্যা ১১ হাজার ১৩টি। ১০-১৫ কোটি টাকা জমা থাকা ব্যাংক হিসাব তিন হাজার ৫৯৯টি, ১৫-২০ কোটি টাকা জমা থাকা ব্যাংক হিসাব এক হাজার ৭৩২টি, ২০-২৫ কোটি টাকা পর্যন্ত আমানত জমা থাকা ব্যাংক হিসাবধারীর সংখ্যা এক হাজার ১৮৫টি।

দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালে দেশে কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা ছিল মাত্র পাঁচজন। ১৯৭৫ সালে এ সংখ্যা থেকে উন্নীত হয়ে দাঁড়াই ৪৭-এ। দেশে ১৯৮০ সালে কোটিপতি ছিলেন ৯৮ জন, ১৯৯০ সালে ৯৪৩ জন, ১৯৯৬ সালে দুই হাজার ৫৯৪ জন, ২০০১ সালে পাঁচ হাজার ১৬২ জন, ২০০৬ সালে আট হাজার ৮৮৭ জন এবং ২০০৮ সালে ১৯ হাজার ১৬৩ জন কোটিপতি গ্রাহক ছিলেন।

 

 





 

অর্থ-বাণিজ্য

লাগামহীন নিত্যপণ্যের দামে ক্রেতার হাঁসফাঁস

ওয়েস্টিন ঢাকা পেল ওয়ার্ল্ড লাক্সারি অ্যাওয়ার্ড

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার, কমলো চিনিতে

মালয়েশিয়ার শ্রম বাজার ফের সচল হচ্ছে

বিশ্ব ব্যাংকের প্রতিবেদন: করোনার বছরে দরিদ্র দেশের ঋণ বেড়েছে ১২%

টিসিবির ট্রাকে ৩০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকবে ৬ দিন

অস্থির নিত্যপণ্যের বাজার, বিপাকে স্বল্প আয়ের মানুষ

১২ কেজি এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বেড়ে ১২৫৯ টাকা

দেশীয় ই-কমার্সের ‘১০-১০’ উৎসব শুরু হচ্ছে আজ

অর্থ-বাণিজ্য বিভাগের আরো খবর


1585646778.gif 1585646793.jpg 1585646805.gif

1615174445.gif

1629015305.png




Copyright © 2017-2021   |   Voice Asian - Asian Based News Portal
Contact: voiceasianinfo@gmail.com

   
StatCOUNTER