| ঢাকা, বাংলাদেশ | শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১ |
1618332889.jpg 1620928344.jpg

বিভাগ : জাতীয় তারিখ : ০৪-০৫-২০২১

একনেকে ১২ হাজার কোটি টাকার ১০ প্রকল্প অনুমোদন


  ভয়েস এশিয়ান ডেস্ক


ভয়েস এশিয়ান, ০৪ মে, ২০২১।। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) তিস্তাসেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকার সম্প্রসারণ ও পুনর্বাসনসহ ১১ হাজার ৯০১ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১০টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে।

এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ৮ হাজার ৯৯২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ ২ হাজার ৯৯ কোটি ৯১ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৮০৯ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মঙ্গলবার (৪ মে) অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এসব প্রকল্পে অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এই সভায় অংশ নেন।

অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পগুলো হলো ডাক, টেলিযোগাযোগে ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে টেলিযোগাযোগে নেটওয়ার্ক স্থাপন (প্রথম পর্যায়) প্রকল্প, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সাইনবোর্ড-মোড়েলগঞ্জ রায়েন্দা-শরণখোলা-বগী সড়কের (আর-৭৭৩) ১৭তম কিলোমিটারে পানগুছি নদীর ওপর পানগুছি সেতু নির্মাণ প্রকল্প, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উপজেলা পর্যায়ে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম (দ্বিতীয় পর্যায়) প্রকল্প, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তরের বহুতল ভবন নির্মাণ প্রকল্প, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল স্থাপন (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প।

এছাড়া স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ২টি প্রকল্প যথাক্রমে রাঙামাটির কারিগরপাড়া থেকে বিলাইছড়ি পর্যন্ত সড়ক উন্নয়ন ও ব্রিজ কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্প এবং কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চাঁদপুরের গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ২টি প্রকল্প যথাক্রমে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার বন্যা নিয়ন্ত্রণ, নিষ্কাশন ও সেচ প্রকল্প এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বাপবিবোর বৈদ্যুতিক বিতরণ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও ক্ষমতাবর্ধন (খুলনা বিভাগ) প্রকল্প। 

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকায় সেচের পানির অভাবে প্রকট শস্যসংকট একটি চিরন্তন সমস্যা। শুষ্ক মৌসুমে তো বটেই আমন মৌসুমেও খরা দেখা দেয়। একমাত্র তিস্তা ছাড়া অন্যান্য ছোট নদী এবং খালে পানি প্রবাহ খুবই কম। তাই তিস্তায় ব্যারেজ নির্মাণের মাধ্যমে এই অঞ্চলে সেচ প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তা ব্রিটিশ আমলেই সৃষ্টি হয়।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধার গুড্ডিমারী ইউনিয়নের পিত্তিফোটা মৌজার দোয়ানী এলাকায় তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের (প্রথম পর্যায়) আওতায় বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ব্যারেজ নির্মিত হয়। প্রকল্পের আওতায় ৭৯ হাজার ৩৭৮ হেক্টর জমি সেচের আওতায় এনে প্রতিবছর প্রায় ১০ লাখ মেট্রিক টন ধান উৎপাদন বাড়ানো হয়। এছাড়া তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে সড়ক যোগাযোগের মাধ্যমে বুড়িমারী স্থলবন্দরের কার্যকারিতাও বাড়ে। 

তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে সড়ক যোগাযোগের ফলে লালমনিরহাট জেলা থেকে রাজধানীসহ দেশের দূরত্ব ৪০ কিলোমিটার কমে গেছে। এতে পণ্য পরিবহন ব্যয় কমেছে। এই ব্যারেজের উজানে তিস্তার বামতীর বরাবর অ্যাফ্লোক্স বাঁধ ঠ্যাংঝারা বর্ডার (ভারত) পর্যন্ত বাঁধ নির্মিত হয়েছে। ফলে এই অংশের সাত কিলোমিটার নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পেয়েছে। উজানের বালুময় জমি উর্বর ফসলি জমিতে পরিবর্তিত হওয়ায় কৃষিতে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। ৬ হাজার হেক্টর ভূমি নদীগর্ভ থেকে উদ্ধার পূর্বক ফসলি জমিতে পরিণত করা সম্ভব হয়েছে। তিস্তা ব্যারেজ নির্মাণের ফলে অনাবাদি জমি ফসলি জমিতে পরিণত হয়েছে। নতুন প্রকল্পের ফলে বছরে আরো হাজার কোটি টাকার ফসল মিলবে।





 

জাতীয়

রাত পোহালেই ঈদ, খোঁজ নেয়নি কোনো সন্তান!

করোনাকালীন ঈদে ১২ নির্দেশনা

৬০ লাখের বেশি মানুষ ঈদে ঢাকা ছেড়েছে

করোনাকালে এলো খুশির ঈদ

স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদুল ফিতর উদযাপনে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

চাঁদ দেখা গেছে, শুক্রবার ঈদ

সবাইকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

ঈদে গণজমায়েত এড়িয়ে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনায় দেশে ৩১ মৃত্যু, শনাক্ত ১২৯০

১৬ মে'র পর আরেক দফা লকডাউন: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

জাতীয় বিভাগের আরো খবর


1585646778.gif 1585646793.jpg 1585646805.gif

1615174445.gif

1585305234.jpg




Copyright © 2017-2021   |   Voice Asian - Asian Based News Portal
Contact: voiceasianinfo@gmail.com